শেখ কামালের ৭০তম জন্মবার্ষিকী আজ

জাতীয়

ঢাকা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বড় ছেলে শেখ কামালের ৭০তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৯৪৯ সালের ৫ আগস্ট তিনি তদানীন্তন গোপালগঞ্জ মহকুমার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালরাতে মাত্র ২৬ বছর বয়সে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে ঘাতকদের নির্মম বুলেটের আঘাতে শাহাদাতবরণ করেন তিনি।

শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন ক্রীড়া ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। আওয়ামী লীগের কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল ৮টায় ধানমণ্ডির আবাহনী ক্লাব প্রাঙ্গণে শহীদ শেখ কামালের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ। এছাড়া সকাল ৯টায় বনানী গোরস্তানে তার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন, কোরআনখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে। সকল ১১টায় জাতীয় শিল্পকলা একাডেমিতে শেখ কামালের জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করবে যুবলীগ।

একই সময় ধানমণ্ডি-৩২ নম্বরে শেখ কামালের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা, দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করবে স্বেচ্ছাসেবক লীগ। আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দলের ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সব স্তরের নেতাকর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের অনুরোধ জানিয়েছেন।

বহুমাত্রিক অনন্য সৃষ্টিশীল প্রতিভার অধিকারী তারুণ্যের প্রতীক শহীদ শেখ কামাল শাহীন স্কুল থেকে মাধ্যমিক ও ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। এরপর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে বিএ (অনার্স) পাস করেন।

তিনি শিল্প, সাহিত্য, সাংস্কৃতিক অঙ্গনের শিক্ষার অন্যতম উৎসমুখ ‘ছায়ানট’-এর সেতারবাদন বিভাগের ছাত্র ছিলেন। তিনি ছিলেন ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। অভিনেতা হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যাঙ্গনে জড়িত ছিলেন। শৈশব থেকে ফুটবল, ক্রিকেট, হকি, বাস্কেটবলসহ বিভিন্ন খেলাধুলায় প্রচণ্ড উৎসাহ ছিল তার। শেখ কামাল উপমহাদেশের অন্যতম সেরা ক্রীড়া সংগঠন, বাংলাদেশে আধুনিক ফুটবলের প্রবর্তক আবাহনী ক্রীড়াচক্রের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন।

শেখ কামাল স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে মুক্তিবাহিনীতে কমিশন লাভ ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানীর এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। স্বাধীনতার পর তিনি সেনাবাহিনী থেকে অব্যাহতি নিয়ে লেখাপড়ায় মনোনিবেশ করেন। তিনি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ ও শাহাদাতবরণের সময় বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগের অঙ্গসংগঠন জাতীয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট শাহাদাতবরণের সময় তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের এমএ শেষপর্বের পরীক্ষা দিচ্ছিলেন।

ডেঙ্গু নির্মূলে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে : ডেঙ্গু নির্মূলে লোক দেখানো কাজ করে লাভ হবে না বলে মন্তব্য করেছেন যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী। তিনি বলেন, ডেঙ্গু নির্মূলে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। শেখ হাসিনার নির্দেশে নিজ নিজ এলাকায় পাড়া-মহল্লা, বাসাবাড়ি ও রাস্তা পরিষ্কার করবে যুবলীগের নেতাকর্মীরা। রোববার দুপুরে মোহাম্মদপুর আদাবরে (শ্যামলী ক্লাব মাঠে) যুবলীগ ঢাকা মহানগর উত্তরের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে তিনি একথা বলেন।

যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক আরও বলেন, ডেঙ্গুতে আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। যুবলীগের ওয়েবসাইট, ই-মেইল অথবা ফেসবুকে যে কোনো সহযোগিতা চাইলে সহায়তা করতে আমরা প্রস্তুত। তিনি বলেন, বাংলাদেশ যেমন অন্য বিপর্যয়গুলো থেকে মুক্তি পেয়েছে, ঠিক তেমনিভাবে ডেঙ্গু থেকেও জাতি মুক্তি পাবে।
যুবলীগ ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাফর ইকবালের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদ, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাদেক খান এমপি, যুবলীগ প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহবুবুর রহমান হিরন, মো. আতাউর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক সুব্রত পাল, সাংগঠনিক সম্পাদক বদিউল আলম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *