একটি পাকা রাস্তার জন্য হাজার,হাজার মানুষের ভোগান্তি

রেজাউল করিম রাজ্জাক, আদিতমারী (লালমনিরহাট) প্রতিনিধিঃ লালমনিরহাট আদিতমারী উপজেলার কমলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদগামী বাজার এলাকায় গত কয়েকদিন থেকে টানা ভর্ষনের ফলে বর্ষার পানি জমে থাকার কারনে জনগনের চলাচলে অনুপযোগি হয়ে পড়েছে দেখলে মনে হবে রাস্তা নয়তো আবাদি জমি। পানি জমে থাকা ও কর্দমাক্ত থাকার কারনে একটি পাকা রাস্তার অভাবে ইউনিয়নের হাজার,হাজার মানুষের উপজেলাগামী একমাত্র যোগাযোগের রাস্তাটি পাকা না করার কারনে যাতায়তের বিঘœ ঘটছে। ভোটের আগে জনপ্রতিনধিরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন আশ্বাস প্রদান প্রদান করলেও ভোটের পর সেই আশ্বাসের কথা ভূলে যায়। ভুলে যায় জনগনের ভোগান্তির কথা।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার থেকে কমলাবাড়ী ইউনিয়দ পরিষদের দুরুত্ব প্রায় ৮ কিলোমিটার দেড় যুগ পূর্বে ৬ কিলোমিটার রাস্তা পাকা হলেও বাকী ২ কিলোমিটার আজ পর্যন্ত পাকার কাজ হয়নি ফলে কাচা রাস্তা দিয়ে প্রতিদিন ভারী যানবাহন চলাচল করছে। ৮টি ইউনিয়নে মধ্যে ৭টি ইউনিয়নে উপজেলার সাথে যোগাযোগের জন্য পাকা রাস্তা থাকলেও একটি মাত্র ইউনিয়ন কমলাবাড়ীতে নেই। যেখানে সরকারীভাবে বলা আছে উপজেলা থেকে প্রত্যক ইউনিয়ন পরিষদে যোগাযোগের জন্য পাকা রাস্তা থাকা বাধ্যতামূলক সেই ক্ষেত্রে কমলাবাড়ীতে কেন হচ্ছে না জনগনের প্রশ্ন ও জিজ্ঞাসা।
এলাকাটি শস্য উৎপাদনশীল এলাকা যেহেতু প্রতিদিন বিভিন্ন যানবাহনে এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে গিয়ে দেশের চাহিদা মিটাচ্ছে অপরদিকে কৃষক-ব্যবসায়ীরা লাভবান হয়। হতাশা আর ক্ষোভ প্রকাশ করে পথচারীরা বলছেন, প্রতিদিন ওই সড়কের কাদায় পড়ে ছাত্র-ছাত্রীসহ অনেককে বাড়ি ফিরে যেতে হয়। পথচারীরা সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। বিশেষ করে এলাকার মানুষ ব্যবসা বানিজ্যসহ বিভিন্ন প্রয়োজনে প্রতিদিন কমলাবাড়ী কাউন্সিল বাজার থেকে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি নিতে এই সড়ক দিয়েই চলাচল করে। সড়কটির অবস্থা করুন হওয়ায় অনেকের ব্যবসা বন্ধের উপক্রম হয়েছে।
এ অবস্থা থাকলে কৃষক ও ব্যাবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ্য হবে। তাই এই এলাকার লোকজন জরুরী ভিত্তিতে কাচা সড়কটি দ্রুত পাকা করে জনগনের চলাচলের জন্য সরকারের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানিয়েছে।
এরশাদ হোসেন নামের এক ভ্যানচালক বলেন, বর্ষাকালে মালামাল নিয়ে কাচারাস্তা দিয়ে চলাচল করতে ভিষন অসুবিধার মুখে পড়তে । তাছাড়া বিভিন্ন সময় জনপ্রতিনিধিরা ভোটের সময নানা অজুহাতে ভোট নিয়ে চলে যাওয়ার আর রাস্তার খবর রাখে না।
ছাইদুর রহমান নামের এক কাচামাল ব্যবসায়ী সাংবাদিককে জানান, প্রতিদিন কাচামাল বিভিন্ন জায়গায় কিনে বস্তাজাত করে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ট্রাকযোগে প্রেরন করি কিন্তু পাকা রাস্তা না থাকায় কাচা রাস্তায় পরিবহন ভাড়া বেশি লাগতেছে। জনপ্রতিনিধিদের গাফিলতির কারনে এই রাস্তাটুকু পাকা হচ্ছে না।
ইউপি সদস্য আব্দুর রহমান সাংবাদিককে জানান, স্থানীয় সংসদ সদস্য নির্বাচনের সময় রাস্তা পাকা করনের ব্যাপারে জনগনকে আশ্বাস প্রদান করেছিল কিন্তু তিনি আজ পর্যন্ত উক্ত রাস্তাটি পাকা করনে কোন উদ্দোগ নেই আগের মতই রহিয়াছে। তবে রাস্তাটি পাকা হলে এই এলাকার সাধারন মানুষের চলাফেরা ও ব্যবসায়ীদের ব্যবসা আরও সুদূঢ় প্রসার ঘটবে।
 উপজেলা প্রকৌশলী আমিনুর ইসলাম সাংবাদিককে জানান, এই রাস্তাটি পাকাকরন বিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য’র ডিও লেটারের প্রয়োজন লাগবে। রাস্তা পাকাকরন বিষয়ে বার,বার উর্ধ্বতন কর্র্তৃপক্ষের নিকট লেখা হয়েছিল।
আদিতমারী উপজেলা চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস ফারুক সাংবাদিককে জানান, সামনে জেলা মাসিক মিটিংয়ে কমলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদগামী রাস্তাটির বিষয়ে জোড়ালো দাবী জানানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.