কাউনিয়ায় তিস্তার পানি হু হু করে বাড়ছে

উজানের পাহাড়ি ঢলে রংপুরের কাউনিয়ায় তিস্তা নদীর পানি হু হু করে বাড়ছে। গতকাল বুধবার দুপুরে কাউনিয়া রেলওয়ে সেতু পয়েন্টে নদীর পানি বিপদসীমার কাছ দিয়ে প্রবাহিত হয়। অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বেশকয়েকটি চরা ল তলিয়ে গেছে। ইতোমধ্যে তিস্তার তীরবর্তী নি¤œা ল তিনটি গ্ৰামে প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবারের বসতবাড়িতে পানি ঢুকতে শুরু করেছে। পানি বৃদ্ধির কারণে চরে রোপন করা আমন চারাসহ বিভিন্ন শাক-সবজির ক্ষেত তলিয়ে গেছে।
রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব জানান, উজানের পাহাড়ি ঢলের কারণে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বুধবার সকাল ৯ টায় নীলফামারীর ডালিয়া পয়েন্টে বিপদসীমার শুন্য দশমিক ১৩ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। অপরদিকে একই সময় কাউনিয়া রেলওয়ে পয়েন্টে শুন্য দশমিক ১৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তিনি বলেন, গত মঙ্গলবার সকাল ৯ টায় ডালিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি বিপদসীমার শুন্য দশমিক ১৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। ডালিয়া ব্যারেজ এলাকায় পানি নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে গত কয়েকদিন ধরে ব্যারাজের ৪৪টি জলকপাট খুলে রাখা হয়েছে। পানি দ্রুত ভাটির দিকে চলে যায়। বুধবার সকালে বিপদসীমার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হয়। ফলে ভাটির অ লে নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। ভাটিতে অস্বাভাবিক ভাবে পানি বৃদ্ধির কারণে রংপুরের কাউনিয়া ও গংগাচড়া উপজেলায় নদীর তীরবর্তী নি¤œা লে পানি ঢুকে পড়েছে।
কাউনিয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা পিআইও আহসান হাবীব সরকার জানান, বুধবার সকালে কাউনিয়া পয়েন্টে তিস্তার পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার আরাজিশাহাবাজ, গোপিডাঙ্গা ও ঢুষমাড়া গ্ৰামের নদীর তীরবর্তী নি¤œা লে প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। এসব পরিবারের তালিকা করছে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের প্রতিনিধিরা। তিনি বলেন, পানি বন্দি মানুষেরা যাতে কষ্ট না পায় সেজন্য সরকারি ভাবে আমাদের সব প্রস্তুতি আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.