চেলসিকে হারিয়ে সেমিফাইনালে টটেনহ্যামের

স্পোর্টস ডেস্ক : ইংলিশ কারাবাও কাপের সেমিফাইনাল প্রথম লেগে ওয়েম্বলিতে মঙ্গলবার রাতে মুখোমুখি হয়েছিল চেলসি ও টটেনহ্যাম হটস্পার। ম্যাচে ১-০ গোলে চেলসিকে হারিয়ে সেমিফাইনালে এক পা দিয়ে রেখেছে লিলিহোয়াইটরা। অবশ্য ফিরতি লেগ খেলতে হবে চেলসির মাঠে। সেক্ষেত্রে ১-০ ব্যবধানের জয় কতটুকু কার্যকর হবে দেখার বিষয়।

মঙ্গলবার ঘরের মাঠে ম্যাচের ২৬ মিনিটে এগিয়ে যায় স্পার্সরা। এ সময় টটেনহ্যামের অর্ধ থেকে লম্বা পাসে বল চলে আসে চেলসির ডি বক্সের সামনে। সেখানে বলের নিয়ন্ত্রণ নিতে সামনে দ্রুতেবেগে ছুটে যেতে থাকেন টটেনহ্যামের হ্যারি কেন। সামনে এগিয়ে আসেন চেলসির গোলরক্ষক কেপা আরিজাবালাগা। তার হাতে লেগে ছিটকে পড়েন কেন। রেফারি সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলেন না কি করবেন।

পরবর্তীতে ভিডিও অ্যাসিস্ট্যান্ট রেফারির (ভিএআর) সাহায্য নেন তিনি। সেখানে দোষী সাব্যস্ত হন কেপা। তাকে রেফারি হলুদ কার্ড দেখান। আর টটেনহ্যামকে পেনাল্টি উপহার দেন। পেনাল্টি থেকে গোল করে স্পার্সদের এগিয়ে নেন হ্যারি কেন।

এরপর অবশ্য উভয় দল গোলের বেশ কিছু সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু তার কোনোটিকেই জালে প্রবেশ করাতে পারেনি দুই দলের কেউ। ফলে ১-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে টটেনহ্যাম।

অবশ্য ম্যাচ শেষে ভিএআরের মাধ্যমে টটেনহ্যামের পাওয়া গোলটির সমালোচনা করেছেন চেলসির কোচ মাউরিজিও সারি, ‘একটু আগে আমি আমাদের ক্যামেরায় ভিডিওটি দেখেছি। এটা আসলে অফসাইট ছিল। আমাদের ক্যামেরা হ্যারি কেনের লাইনেই ছিল। তার মাথা ও হাঁটু অফসাইটে ছিল। আসলে আমি মনে করি ইংলিশ রেফারিরা ভিএআর পদ্ধতি ব্যবহারে সক্ষম নন। কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে আপনাকে বল অনুসরন করতে হবে। কিন্তু রেফারি ভিডিওটি বন্ধ করেছেন এবং বল অনুসরন করেননি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.