ঠাকুরগাঁওয়ে এইচ.এস.সি পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে অশ্লীল নগ্ন নৃত্য আর জুয়া

দিনাজপুর থেকে সিদ্দিক হোসেন : ঠাকুরগাঁও সদরে বড় খোচা বাড়ী বৌ রানী বাজার সয়তান পাড়ায় বসেছে এই আনন্দ মেলা। বাংলাদেশের যত রকমের জুয়া আছে সব জুয়াই বসেছে এই আনন্দ মেলায়। সেই সাথে জুয়ারোদের মনোরঞ্জনের জন্য একেবারে নগ্ন অর্ধ নগ্ন অশ্লীন নৃত্য চালানো হচ্ছে। সবই হচ্ছে প্রশাসনের নাগের ডগায়। সর্বশান্ত হচ্ছে এলাকার মানুষ। বিপদগামী হচ্ছে উটতি বয়েসি যুবকেরা, কি এক অজ্ঞাত কারণে তারা চুপ করে রয়েছে সচেতন মহলের প্রশ্ন।

ঠাকুরগাঁও বড় খোচা বাড়ী থেকে ৩-৪ কিলোমিটার দূরুত্বে বৌ রানী বাজার সয়তান পাড়ায় এই আনন্দ মেলা বসেছে। মেলায় ঢুকতেই চোখে পড়বে হাতের ডান সাইডে যানবাহন রাখার গেরেজ, বাম সাইডে নগ্ন নৃত্যের ২টি মিনি যাত্রা আরো একটু পাশে অরণ্য অপেরা যাত্রা পালা সাথেই দৈনিক স্বর্ণ ছোয়া র‌্যাফেল ড্র, রয়েছে অসংখ্য লোভনীয় পুরষ্কার। মেলা কমিটির ঘর সংলগ্ন হাতের ডানে বাউন্ডারি দিয়ে বসানো হয়েছে প্রায় ২ শতাধিক ডাব্বু জুয়ার বোড। বাউন্ডারির বাহিরে বৌ রানী জুয়া, কাটা জুয়া, রিং খেলা জুয়া সহ বিভিন্ন প্রকার জুয়া খেলা প্রায় ৫০-৬০টি। সামনেই হাউজি খেলা চলচ্ছে। মূল মেলা শুরু হয় রাত ১১টার পর থেকেই।

ডাব্বু জুয়ার বোড পরিচালনা কারীরা জানান, প্রতি ১টি ডাব্বুর জুয়ার বোর্ড থেকে প্রতি রাত্রীতে জুয়া খেলার জন্য কমিটির প্রধানকে ১ লক্ষ টাকা দিতে হয়। সেই হিসেবে প্রতি রাত্রীতে আনন্দ মেলার ইজারাদার মোঃ ওসমান ২শত ডাব্বু জুয়ার বোর্ড থেকে ২ কোটি টাকা পান। বান্ডারির বাহিরে যে সকল জুয়া খেলা হচ্ছে ৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে হয় মেলা কমিটির প্রধানকে। এই মেলায় বিভিন্ন জেলার জুয়ারোদের আগমন ঘটে প্রতি রাত্রীতে।

এ ব্যাপারে মেলার ইজারাদার মোঃ ওসমান কে আনন্দ মেলার হাউজি, ডাব্বু জুয়া, র‌্যাফেল ড্র ও অন্যান্য জুয়া এবং নগ্ন নৃত্য চালানোর অনুমতি রয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিনা অনুমতিতে আমি মেলা পরিচলনা করছি না। মেলাটি ৩৫ লক্ষ টাকা ডাকের মাধ্যমে নিয়েছি। পত্রিকায় লিখে কোন লাভ হবে না। মোঃ ওসমানের বাড়ী ঢাকায় বলে জানান তিনি।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসকের কাছে মুঠোফোনে মেলার সম্পর্কে জানাতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে ব্যবস্থা আমরা নিচ্ছি। হাই কোর্টে কাগজ পাঠিয়েছি ভ্যাকেট করার জন্য। এম.পি রমেশ চন্দ্র এবং অ্যাটর্নি জেনারেল এর কাছে কাগজ পাঠিয়েছি। আমি আশা করছি আগামী ২-৩ দিনের ভিতরে এর ব্যবস্থা হয়ে যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Right Menu Icon