ডিমলায় অনার্স পড়ুয়া ছাত্রীকে পিটিয়ে হত্যা-আটক ৩

আনিছুর রহমান মানিক, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডিমলায় প্রেম ঘটিত কারনে অনার্স পড়ুয়া ছাত্রীকে পিটিয়ে হত্যার পর মধ্যরাতে হাসপাতালে লাশ রেখে পালিয়ে গেছে প্রেমিকের বাড়ীর লোকজন। এ ঘটনায় পুলিশ ৩জনকে আটক করেছে। বুধবার রাতে উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের সোভানগঞ্জ বালাপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানাগেছে, নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার মেলাপাঙ্গা গ্রামের আব্দুর ছাত্তারের কন্যা ও নীলফামারী সরকারী মহিলা কলেজের অনার্স (রাষ্ট্র বিজ্ঞান)২য় বর্ষের ছাত্রী সুরুভী আক্তারের সাথে ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের সোভানগঞ্জ বালাপাড়া গ্রামের আফজাল হোসেনের পুত্র আরফান আলী(২২) এর সাথে গত তিন বৎসর যাবত প্রেম চলে আসছিলো। প্রেমের এক পর্যায় গত ১৭ই ডিসেম্বর প্রেমিক আরফান আলী সুরুভী আক্তার কে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে নিজ বাড়ীতে নিয়ে আসে। বাড়ীতে নিয়ে আসার পরে আরফানের পরিবারের লোকজন সুরুভীর সাথে আরফানের বিয়ে দিতে অনিহা প্রকাশ করে। এ ঘটনায় এলাকায় একাধিকবার সমঝোতার চেষ্টা করা হয়। সর্বশেষ উভয় পক্ষের অভিভাবকদের নিয়ে মঙ্গলবার রাতে বালাপাড়া ইউনিয়ন পরিষদে আপোষ মিমাংসার চেষ্টা করেও কোন ফল হয়নি।

এরপর বুধবার রাতে আরফানসহ তার বাড়ীর লোকজন সুরুভী আক্তারকে বেধরক মারপিট করে হত্যা করে গভীর রাতে সুরুভী আক্তারের লাশ ডিমলা হাসপাতালে রেখে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ডিমলা থানা পুলিশ সোভানগঞ্জ বালাপাড়া গ্রামের আরফানের পিতা মৃত জয়নালের ছেলে আফজাল হোসেন(৫৫), আরফানের মামা ফয়মুদ্দিনের ছেলে খুশিয়ার রহমান(৪৮) এবং মফিজ উদ্দিনের ছেলে শাহজাহান(৩২)কে আটক করে। ডিমলা থানার ওসি মফিজ উদ্দিন শেখ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বুধবার দুপুরে ডিমলা হাসপাতাল হতে সুরুভীর লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলার মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পয্যন্ত সুরুভীর পরিবারের লোকজন মামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানাগেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Right Menu Icon