August 8, 2022, 9:53 pm

বিএনপির ৩ প্রার্থীর নির্বাচন আটকে গেলো

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮,
  • 0 Time View

বিজয় ডেস্ক: আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকা-২০ আসনে বিএনপির প্রার্থী তমিজ উদ্দিনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত করে হাই কোর্টের দেয়া আদেশের ওপর চেম্বার আদালতের স্থগিতাদেশ তুলে দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

একইসঙ্গে বগুড়া-৩ আসনে আদমদিঘী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বিএনপির প্রার্থী আব্দুল মুহিত তালুকদার ও বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাজাহানপুর) আসনের বিএনপির প্রার্থী শাহজাহানপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরকার বাদল মনোনয়নপত্র অবৈধ করে নির্বাচন কমিশনের দেয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত করে হাই কোর্টের আদেশের ওপর চেম্বার আদালতের স্থগিতাদেশ চলমান রেখেছেন আপিল বিভাগ।

ফলে এ তিনজন আর নির্বাচন করতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে চেয়ারম্যানদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী এ জে মোহাম্মদ আলী ও প্রবীর নিয়োগী। নির্বাচন কমিশনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মাহবুবে আলম।

তমিজ উদ্দিন

ধামরাই উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে তমিজ উদ্দিনের পদত্যাগপত্র গ্রহণের আগেই তিনি মনোনয়নপত্র জমা দেন। রির্টার্নিং কর্মকর্তা ২ ডিসেম্বর তা বাতিল করেন। এর বিরুদ্ধে তিনি আপিল করলে ইসি ৬ ডিসেম্বর আপিল মঞ্জুর করে বৈধ প্রার্থী ঘোষণা করে।

পরে এর বিরুদ্ধে রিট করেন ওই আসনের আওয়ামী লীগ প্রার্থী বেনজীর আহমেদ। ১১ ডিসেম্বর বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের হাই কোর্ট বেঞ্চ তমিজ উদ্দিনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া সিদ্ধান্ত স্থগিত করে রুলসহ আদেশ দেন।

হাই কোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে তমিজ উদ্দিনের আবেদনের পর বুধবার (১২ ডিসেম্বর) চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর আদালত হাই কোর্টের আদেশ স্থগিত করে শুনানির জন্য বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠানোর আদেশ দেন।

মুহিত ও সরকার বাদল উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ না করায় বগুড়া-৩ আসনে আদমদিঘী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বিএনপির প্রার্থী আব্দুল মুহিত তালুকদার ও বগুড়া-৭ (গাবতলী-শাজাহানপুর) আসনের বিএনপির প্রার্থী শাহজাহানপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরকার বাদল মনোনয়নপত্র বাতিল করে নির্বাচন কমিশন।

এরপর প্রার্থিতা ফিরে পেতে তারা হাই কোর্টে আবেদন করেন। হাইকোর্ট ৯ ডিসেম্বর আলাদা রিটের শুনানি নিয়ে নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত স্থগিত করেন। পরে এ আদেশের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আবেদন করে নির্বাচন কমিশন। আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করে দেন। একইসঙ্গে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠানোর আদেশ দেন। মঙ্গলবার পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ চলমান রেখেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2019 LatestNews
themesbanewsbijo41