ঢাকা ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

newsbijoy24.com

বিশ্ববাজারে সোনার দাম কমলেও দেশে বেড়েছে

Up to BDT 150 Cashback on New Connection

বিশ্ববাজারে সোনার দরে পতন হলেও দেশে দাম বেড়েছে। গত এক সপ্তাহেই বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স সোনার দাম প্রায় ২১ ডলার কমেছে। কিন্তু গত এক সপ্তাহে দেশের বাজারে সোনার দাম দু’দফা বেড়েছে। এতে ভালো মানের এক ভরি সোনার দাম এক সপ্তাহে বেড়েছে চার হাজার টাকার বেশি।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) দায়িত্বশীলরা বলছেন, দেশের বাজারে সোনার দাম নির্ধারণ করা হয় স্থানীয় বাজারের পাকা সোনার ওপর ভিত্তি করে। স্থানীয় বাজারে পাকা সোনার দাম বাড়লে দেশের বাজারে সোনার দাম বাড়ানো হয়। গত সপ্তাহে রাজধানীর তাঁতীবাজারে পাকা সোনার দাম অনেক বেড়েছে। এ কারণে সোনার দাম বাড়ানো হয়েছে।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত সপ্তাহের শুরুতে প্রতি আউন্স সোনার দাম ছিল এক হাজার ৭৭১ দশমিক শূন্য আট ডলার। সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসের লেনদেনের একপর্যায়ে সোনার দাম বেড়ে প্রতি আউন্স এক হাজার ৭৮২ দশমিক ৮৮ ডলারে ওঠে যায়। তৃতীয় কার্যদিবসের লেনদেনের একপর্যায়ে তা আরও বেড়ে এক হাজার ৭৮৩ দশমিক ৫৬ ডলারে ওঠে।

তবে এরপর পতনের মধ্যে পড়ে সোনার দাম। সপ্তাহের শেষ দুই কার্যদিবসে টানা দরপতন হয় সোনার। এতে ১৮৩ দশমিক ৫৬ ডলার থেকে কমে প্রতি আউন্সের দাম এক হাজার ৭৫০ দশমিক ১৪ ডলারে দাঁড়িয়েছে। অর্থাৎ দুদিনে প্রতি আউন্স সোনার দাম কমেছে ৩৩ দশমিক ৪২ ডলার। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে সোনার দাম কমেছে এক দশমিক ১৬ শতাংশ বা ২০ দশমিক ৯৪ ডলার।

বিশ্ববাজারে দাম কমার মধ্যেই গত সপ্তাহের ১৩ ও ১৮ নভেম্বর দেশের বাজারে দু’দফায় সোনার দাম বাড়ানো হয়। এর মধ্যে সর্বশেষ ১৮ নভেম্বর সব থেকে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) সোনার দাম এক হাজার ৫৭০ টাকা বাড়িয়ে ৮৪ হাজার ২১৪ টাকা করা হয়েছে।

অন্যদিকে ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ৬৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৮০ হাজার ৩৬৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ৪৫৮ টাকা বাড়িয়ে ৬৮ হাজার ৯৩৪ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির সোনার দাম ভরিতে এক হাজার ১৬৬ টাকা বাড়িয়ে ৫৬ হাজার ৬৮৭ টাকা করা হয়েছে।

১৩ নভেম্বর সব থেকে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি সোনার দাম দুই হাজার ৩৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৮২ হাজার ৪৬৪ টাকা, ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম দুই হাজার ২১৬ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ৭৩২ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ৯২৪ টাকা বাড়িয়ে ৬৭ হাজার ৪৭৬ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ১৬৭ টাকা বাড়িয়ে ৫৫ হাজার ৫২১ টাকা করা হয়।

বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির মেম্বার সেক্রেটারি বাবুল দত্ত বিশ্ববাজারে সোনার দাম কমলেও দেশের বাজারে দাম বাড়ার কারণ প্রসঙ্গে বলেন, লোকাল মার্কেটে পাকা সোনার দাম কত তার ওপর নির্ভর করে আমরা দাম নির্ধারণ করি। এর আগে বিশ্ববাজারে যখন দাম বেড়েছে, আমাদের এখানে ওইভাবে দাম সমন্বয় হয়নি। এ কারণে আমাদের স্থানীয় বাজারে দাম না কমে উল্টো বেড়ে গেছে। আমরা তাঁতীবাজারের পাকা সোনার যে দাম, সেটা বিবেচনায় এনে দাম নির্ধারণ করি।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

Nagad-Fifa-WorldCup

শনিবার বিএনপি’র ১০ দফায় যা থাকছে

বিশ্ববাজারে সোনার দাম কমলেও দেশে বেড়েছে

প্রকাশিত সময়: ০৪:১৪:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২২

বিশ্ববাজারে সোনার দরে পতন হলেও দেশে দাম বেড়েছে। গত এক সপ্তাহেই বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স সোনার দাম প্রায় ২১ ডলার কমেছে। কিন্তু গত এক সপ্তাহে দেশের বাজারে সোনার দাম দু’দফা বেড়েছে। এতে ভালো মানের এক ভরি সোনার দাম এক সপ্তাহে বেড়েছে চার হাজার টাকার বেশি।

বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) দায়িত্বশীলরা বলছেন, দেশের বাজারে সোনার দাম নির্ধারণ করা হয় স্থানীয় বাজারের পাকা সোনার ওপর ভিত্তি করে। স্থানীয় বাজারে পাকা সোনার দাম বাড়লে দেশের বাজারে সোনার দাম বাড়ানো হয়। গত সপ্তাহে রাজধানীর তাঁতীবাজারে পাকা সোনার দাম অনেক বেড়েছে। এ কারণে সোনার দাম বাড়ানো হয়েছে।

তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, গত সপ্তাহের শুরুতে প্রতি আউন্স সোনার দাম ছিল এক হাজার ৭৭১ দশমিক শূন্য আট ডলার। সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসের লেনদেনের একপর্যায়ে সোনার দাম বেড়ে প্রতি আউন্স এক হাজার ৭৮২ দশমিক ৮৮ ডলারে ওঠে যায়। তৃতীয় কার্যদিবসের লেনদেনের একপর্যায়ে তা আরও বেড়ে এক হাজার ৭৮৩ দশমিক ৫৬ ডলারে ওঠে।

তবে এরপর পতনের মধ্যে পড়ে সোনার দাম। সপ্তাহের শেষ দুই কার্যদিবসে টানা দরপতন হয় সোনার। এতে ১৮৩ দশমিক ৫৬ ডলার থেকে কমে প্রতি আউন্সের দাম এক হাজার ৭৫০ দশমিক ১৪ ডলারে দাঁড়িয়েছে। অর্থাৎ দুদিনে প্রতি আউন্স সোনার দাম কমেছে ৩৩ দশমিক ৪২ ডলার। এতে সপ্তাহের ব্যবধানে সোনার দাম কমেছে এক দশমিক ১৬ শতাংশ বা ২০ দশমিক ৯৪ ডলার।

বিশ্ববাজারে দাম কমার মধ্যেই গত সপ্তাহের ১৩ ও ১৮ নভেম্বর দেশের বাজারে দু’দফায় সোনার দাম বাড়ানো হয়। এর মধ্যে সর্বশেষ ১৮ নভেম্বর সব থেকে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি (১১.৬৬৪ গ্রাম) সোনার দাম এক হাজার ৫৭০ টাকা বাড়িয়ে ৮৪ হাজার ২১৪ টাকা করা হয়েছে।

অন্যদিকে ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ৬৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৮০ হাজার ৩৬৫ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ৪৫৮ টাকা বাড়িয়ে ৬৮ হাজার ৯৩৪ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির সোনার দাম ভরিতে এক হাজার ১৬৬ টাকা বাড়িয়ে ৫৬ হাজার ৬৮৭ টাকা করা হয়েছে।

১৩ নভেম্বর সব থেকে ভালো মানের বা ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি সোনার দাম দুই হাজার ৩৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৮২ হাজার ৪৬৪ টাকা, ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম দুই হাজার ২১৬ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ৭৩২ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ৯২৪ টাকা বাড়িয়ে ৬৭ হাজার ৪৭৬ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি সোনার দাম এক হাজার ১৬৭ টাকা বাড়িয়ে ৫৫ হাজার ৫২১ টাকা করা হয়।

বাজুসের মূল্য নির্ধারণ ও মূল্য পর্যবেক্ষণ সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির মেম্বার সেক্রেটারি বাবুল দত্ত বিশ্ববাজারে সোনার দাম কমলেও দেশের বাজারে দাম বাড়ার কারণ প্রসঙ্গে বলেন, লোকাল মার্কেটে পাকা সোনার দাম কত তার ওপর নির্ভর করে আমরা দাম নির্ধারণ করি। এর আগে বিশ্ববাজারে যখন দাম বেড়েছে, আমাদের এখানে ওইভাবে দাম সমন্বয় হয়নি। এ কারণে আমাদের স্থানীয় বাজারে দাম না কমে উল্টো বেড়ে গেছে। আমরা তাঁতীবাজারের পাকা সোনার যে দাম, সেটা বিবেচনায় এনে দাম নির্ধারণ করি।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন