ঢাকা ০৯:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২৫ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শীতে কলা খাওয়া কি সর্দি-কাশির জন্য ক্ষতিকর?

  • অনলাইন ডেস্ক :-
  • প্রকাশিত সময়: ১২:৪৭:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৩
  • 248

দেশে ইতোমধ্যে জেঁকে বসেছে শীত। এই সময় ত্বক শুষ্ক হওয়াসহ সর্দি-কাশির মতো নানা সমস্যা দেখা দেয়। এসব সমস্যা নিয়ে অনেকের মাঝে ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে। কেউ কেউ মনে করেন সানস্ক্রিন শুধু গ্রীষ্মে ব্যবহার করা উচিত। কেউ মনে করেন শীতে সূর্য পৃথিবীর কাছে থাকে, এ কারণে এর রশ্মি ক্ষতিকর। এসব ভ্রান্ত ধারণা ছাড়া কিছুই নয়।

অনাকাঙ্ক্ষিত বেড়ে যাওয়া ওজন কমানোর জন্য অনেকে নিয়মিত ব্যায়াম করেন। কিন্তু শীতকালে একাংশ মনে করেন, এই সময় ব্যায়াম করা ক্ষতিকর হতে পারে। আসলে এটি ভুল ধারণা।

শীত থেকে নিজেকে রক্ষায় অ্যালকোহল পান করলে উষ্ণ থাকে শরীর―এমনটা ভেবে থাকেন অনেকে। মূলত অ্যালকোহল পানে কিছুক্ষণ শরীর গরম থাকে। তবে তা দীর্ঘস্থায়ী নয়। শরীরকে গরম রাখার জন্য অ্যালকোহল পানের প্রয়োজন নেই।

শীতে অঞ্চল ভেদে কুয়াশা পড়ে। এ সময় শীতের জামা-কাপড়ে নিজেকে ভালোভাবে বেষ্টিত রাখতে হয়। কুয়াশা যেন মাথায় না পড়ে সেজন্য চাদর বা টুপিতে ঢেকে রাখতে পারেন মাথা। এতে সর্দি হওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

অ্যালার্জি রয়েছে এমন মানুষ শীতে মনে করেন এই ঋতুতে কিছুটা সুবিধা পাবেন তারা। এই ধারণাও ভুল। শীত মৌসুমেও বাসার বাইরে বের হলে ধুলাবালি থেকে নিজেকে সুরক্ষায় ব্যবস্থা নেয়া উচিত। আবার বাসায় থাকলে দরজা-জানালা ভালো করে বন্ধ রাখতে হবে। যেন বাইরে থেকে ঠান্ডা বাতাস ভেতরে প্রবেশ না করে।

শীতে স্বাভাবিকভাবে সর্দি-কাশি কম-বেশি সবারই হয়ে তাকে। এ কারণে কলা খাওয়া ঠিক নয় বলে মনে করেন কেউ। অনেকের ধারণা কলা খেলে ঠান্ডা আরও বেড়ে যাবে। এতে সর্দি-কাশি থেকে পরিত্রাণ পেতে সময় আরও বেশি লাগবে। এই ধারণা মোটেও ঠিক নয়। বরং কলা খাওয়া উপকারী। কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম রয়েছে। নিয়মিত এই ফল খাওয়ার ফলে পানির অভাব পূরণ হয় এবং শরীরে আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলা হয়েছে, কলা খেলে হৃদরোগ ও উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধে উপকার পাওয়া যায়। ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ায় হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে কলা। এছাড়া মস্তিষ্ককে সজাগ রাখতে সহায়তা করে।

এছাড়া যারা জিম করেন, বিশেষ করে সন্ধ্যায় জিমের পর কলা খাওয়া ভালো অভ্যাস। পটাশিয়াম সমৃদ্ধ এই ফল খাওয়ার ফলে সারাদিনের ক্লান্তি দূর করে। সেই সঙ্গে পেশি শিথিল করতে সহায়তা করে। তাই সন্ধ্যায় একটি বা দুটি কলা খাওয়া শরীরের জন্য সহায়ক।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন

Up to BDT 650 benefits on New Connection

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy24

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

Nagad-Fifa-WorldCup

ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা ৫ হাজার ছাড়াল

শীতে কলা খাওয়া কি সর্দি-কাশির জন্য ক্ষতিকর?

প্রকাশিত সময়: ১২:৪৭:১৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৩

দেশে ইতোমধ্যে জেঁকে বসেছে শীত। এই সময় ত্বক শুষ্ক হওয়াসহ সর্দি-কাশির মতো নানা সমস্যা দেখা দেয়। এসব সমস্যা নিয়ে অনেকের মাঝে ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে। কেউ কেউ মনে করেন সানস্ক্রিন শুধু গ্রীষ্মে ব্যবহার করা উচিত। কেউ মনে করেন শীতে সূর্য পৃথিবীর কাছে থাকে, এ কারণে এর রশ্মি ক্ষতিকর। এসব ভ্রান্ত ধারণা ছাড়া কিছুই নয়।

অনাকাঙ্ক্ষিত বেড়ে যাওয়া ওজন কমানোর জন্য অনেকে নিয়মিত ব্যায়াম করেন। কিন্তু শীতকালে একাংশ মনে করেন, এই সময় ব্যায়াম করা ক্ষতিকর হতে পারে। আসলে এটি ভুল ধারণা।

শীত থেকে নিজেকে রক্ষায় অ্যালকোহল পান করলে উষ্ণ থাকে শরীর―এমনটা ভেবে থাকেন অনেকে। মূলত অ্যালকোহল পানে কিছুক্ষণ শরীর গরম থাকে। তবে তা দীর্ঘস্থায়ী নয়। শরীরকে গরম রাখার জন্য অ্যালকোহল পানের প্রয়োজন নেই।

শীতে অঞ্চল ভেদে কুয়াশা পড়ে। এ সময় শীতের জামা-কাপড়ে নিজেকে ভালোভাবে বেষ্টিত রাখতে হয়। কুয়াশা যেন মাথায় না পড়ে সেজন্য চাদর বা টুপিতে ঢেকে রাখতে পারেন মাথা। এতে সর্দি হওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

অ্যালার্জি রয়েছে এমন মানুষ শীতে মনে করেন এই ঋতুতে কিছুটা সুবিধা পাবেন তারা। এই ধারণাও ভুল। শীত মৌসুমেও বাসার বাইরে বের হলে ধুলাবালি থেকে নিজেকে সুরক্ষায় ব্যবস্থা নেয়া উচিত। আবার বাসায় থাকলে দরজা-জানালা ভালো করে বন্ধ রাখতে হবে। যেন বাইরে থেকে ঠান্ডা বাতাস ভেতরে প্রবেশ না করে।

শীতে স্বাভাবিকভাবে সর্দি-কাশি কম-বেশি সবারই হয়ে তাকে। এ কারণে কলা খাওয়া ঠিক নয় বলে মনে করেন কেউ। অনেকের ধারণা কলা খেলে ঠান্ডা আরও বেড়ে যাবে। এতে সর্দি-কাশি থেকে পরিত্রাণ পেতে সময় আরও বেশি লাগবে। এই ধারণা মোটেও ঠিক নয়। বরং কলা খাওয়া উপকারী। কলায় প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম রয়েছে। নিয়মিত এই ফল খাওয়ার ফলে পানির অভাব পূরণ হয় এবং শরীরে আর্দ্রতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলা হয়েছে, কলা খেলে হৃদরোগ ও উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধে উপকার পাওয়া যায়। ফাইবার সমৃদ্ধ হওয়ায় হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে কার্যকর ভূমিকা রাখে কলা। এছাড়া মস্তিষ্ককে সজাগ রাখতে সহায়তা করে।

এছাড়া যারা জিম করেন, বিশেষ করে সন্ধ্যায় জিমের পর কলা খাওয়া ভালো অভ্যাস। পটাশিয়াম সমৃদ্ধ এই ফল খাওয়ার ফলে সারাদিনের ক্লান্তি দূর করে। সেই সঙ্গে পেশি শিথিল করতে সহায়তা করে। তাই সন্ধ্যায় একটি বা দুটি কলা খাওয়া শরীরের জন্য সহায়ক।

নিউজবিজয়২৪/এফএইচএন