সুন্দরগঞ্জে বসতবাড়িতে হামলা চালিয়ে লুটপাট-অগ্নিসংযোগ: আহত-৪

আবু বক্কর সিদ্দিক, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বসতবাড়িতে বেপরোয়া হামলা চালিয়ে ব্যাপক মারপিট, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করেছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় মৃত বাছতউল্লাহর পুত্র শহিদ মিয়া, ছোট ভাই আব্দুর রশিদ (৪৫), আব্দুর রশিদের স্ত্রী মহিমা বেগম (৪০) ও শহিদ মিয়ার ভাবী আমেনা বেগম (৬০) গুরুতর আহত হয়ে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকালে উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের উজান বোচাগাড়ি গ্রামের ঠাকুরের মাঠপাড়ায় বসবাসকারী শহিদ মিয়া গংয়ের বসতবাড়িতে এ হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। হামলাকারীরা সকলেই শহিদ মিয়ার প্রতিবেশি মৃত খুজিয়া রাম রায়ের পুত্র দেবেন চন্দ্র রায় ওরফে দেবেন মাষ্টারের ভাড়াটে বাহিনীর সদস্যের কথা উল্লেখ করে স্থানীয়রা জানান, উক্ত বসতবাড়ির ৬৭ শতক জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এরই একপর্যায়ে শহিদ মিয়া গং আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার নোটিশ পেয়ে অসহায় শহিদ মিয়ার পরিবারকে উচ্ছেদ করার উদ্দেশ্যে ৩ শতাধিক সদস্যের দলবল নিয়ে বেপরোয়া হামলা চালায়। হামলাকারীদের ব্যাপক মারপিট, লুটপাট, অগ্নিসংযোগের ঘটনায় পরিবারটির ১২ থেকে ১৫ লাখ টাকার সম্পদেরহানি ঘটে। তাদের অগ্নিসংযোগে ঘরবাড়ি ভষ্মিভূত হবার পর থেকে শহিদ মিয়ার পরিবারটি খোলা আকাশের নিচে রয়েছে। শহিদ মিয়ার ভাই শাাহ্ আলম দাবি করে জানান, প্রতিপক্ষের ভাড়াটে হামলাকারীরা ব্যাপক মারপিট করা ছাড়াও বাড়িঘর ভাংচুর, গরু-ছাগল, ধান-চাল, টাকা, স্বর্ণালঙ্কার লুটপাট করে নিয়ে যাবার সময় আগুন ধরিয়ে দিলে সমস্ত ঘরবাড়ি ভস্মিভূত হয়। এতে তাদের ১৫ লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। মারপিটে পরিবারের অনেকেই আহত হলেও আশঙ্কাজনক অবস্থায় ৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ব্যাপারে দেবেন চন্দ্র রায়ের সঙ্গে কথা না হলেও তার ছোট ভাই সুরেন চন্দ্র রায় জানান, হামলাকারীদের অগ্নিসংযোগে ভষ্মিভূত বাড়িটি নিজের বলে দাবি করে ঘটনা উল্টোভাবে প্রথম পর্যায়ে সাম্প্রদায়িকতার দিকে ধাবিত করার চেষ্টা চালান। পরবর্তিতে অন্যান্য প্রশ্নের জবাবে ব্যর্থ হন। চন্ডিপুর ইউপি’র সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড সদস্য ফুল মিয়া প্রথমে ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহের চেষ্টা চালালেও পরবর্তীতে দেবেন মাষ্টারের

ভাড়াটে বাহিনী কর্তৃক হামলার ঘটনা স্বীকার করেন।

কঞ্চিবাড়ি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ- পুলিশ পরিদর্শক এনায়েত কবির জানান, খবর পেয়ে ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এ ব্যাপারে কোন অভিযোগ পাওয়া যায় নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Right Menu Icon