হাতীবান্ধায় শব্দ দূষণ সমস্যায় সর্ব সাধারণ অতিষ্ঠ : আইন থাকলেও প্রতিকার নেই

কাজী আলতাব হোসেন, হাতীবান্ধা (লালমনিরহাট) প্রতিনিধি-সম্প্রতি লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলা সদর সহ সর্বত্র দিবারাত্রী ব্যাপক প্রচারে মাইক সাউন্ট সার্ভিস ছোট বড় যানবাহনে হর্ণ সহ সর্বপ্রকার বিকট শব্দে রোগী,ছাত্র/ছাত্রীসহ সর্ব সাধারন অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। আইন থাকলেও প্রতিকারে মাথা ব্যাথা নেই কারো।

জানাগেছে, শব্দ দূষন রোধে সরকার দিক নির্দেশনা সহ নিয়মনীতি ও আইন প্রণয়ন করেছে। আর এসব আইন বাস্তবায়নের জন্য যথাযথ কৃতপক্ষ দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে। অবিশ্বাস হলেও সত্য যে,আইন ও নিয়মনীতি থাকলেও কী হবে? আসলে বাস্তবায়নে কেউ নেই। ফলে দিন দিন আইন অমান্যকারীদের পাল্লা ভারী হচ্ছে। অপর দিকে এলাকার পরিবেশ ভারী করে তুলছে। যেমন মাইক যোগে মাছ,মাংস,সুটকি,মরিচ,পেঁয়াজ,লবন,তেলসহ সর্ব প্রকার পণ্য বিক্রয়ে ব্যাপক প্রচার সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ছাত্র/ছাত্রী ভর্তি,প্রাইভেট চিকিৎসকদের চিকিৎসা কেন্দ্রের পরিচিতি,বিয়ে বাড়ী,বিভিন্ন অনুষ্ঠান,পিকনিক বনভোজন,সঙ্গিতানুষ্ঠান,হোটেল রেস্তোরায় উন্নত খাবার পরিবেশন, যানবাহনের টিকিট কাউন্টার, হারানো বিজ্ঞপ্তি সহ সর্ব প্রকার ব্যাপক প্রচারে রিক্সা,অটো রিক্সা,ভ্যান ও মাইক্রোবাসে ২/৩টি করে মাইক বেধে দিবা রাত্রী শহর বন্দর গ্রাম গঞ্জে বিকট শব্দে কান ঝালাপালা করে তুলছে। এতে শুধু পরিবেশ হুমকি নয়,হাসপাতালে মুর্মূষ রোগী,স্কুল কলেজের ছাত্র/ছাত্রী, মসজিদে নামাজরত্ব মুসুল্লি,অফিস আদালতের কার্যক্রমের ব্যাঘাত সৃষ্টিসহ সর্বসাধারনকে অতিষ্ট করে তুলেছে। যাহা অনুমতি ছাড়াই এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী,আইন আছে কিংবা অনুমতি নিতে হয় বলে কিছু মনে করেনা। সর্বদায় আইন উপেক্ষা করে নিজ নিজ স্বার্থ হাসিলে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। অপর দিকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কৃতপক্ষ জেনেও না জানার ভান করে নিরবতা পালন করছে। বিষয়টি উপজেলা পরিষদে অনুষ্ঠিত একাধিক মাসিক সভায় উপস্থাপন করা হয়েছে। সভায় একাধিক রেজুলেশন করা হলেও বাস্তবায়নে কোন কার্যকারী ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে না। যাহা রহস্যজনক মনে করেছেন কমিটির সদস্য বৃন্দ। এ ব্যাপারে উর্ধ্বতন কৃতপক্ষের আশু দৃষ্টি প্রয়োজন বলে মনে করেছেন ভুক্ত ভোগীরা।

ছবি ক্যাপশন-নিয়মনীতি না মেনে সর্বচ্চ সাউন্টদিয়ে মাইক প্রচার, ছবিটি শনিবার রাত্রে হাতীবান্ধা প্রেসক্লাবের সামন থেকে তোলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.