ঢাকা ১২:২৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ২২ মাঘ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার পাচ্ছেন রংপুর-রাজশাহীর সব গ্রাহক

স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটারের আওতায় আসছে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের সব গ্রাহক। এজন্য রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (নেসকো) আওতাধীন এলাকায় স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপন প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে। ৭১২ কোটি ৬২ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে নেসকো। আজ এই প্রকল্পসহ একনেক সভায় দুই হাজার ৬৬৫ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয়ে ৯ প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। দুই বছরেরও বেশি সময় পর সশরীরের একনেক বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (১ জুন) আগারগাঁওয়ের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনা শনাক্তের পর থেকে আর সশরীরে একনেক বৈঠকে উপস্থিত হননি প্রধানমন্ত্রী।
একনেক সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, একনেক সভায় দুই হাজার ৬৬৫ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত ৯টি প্রকল্প অনুমোদন করেছে। প্রকল্পটি জুলাই ২০২১ থেকে জুন ২০২৪ মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রকল্প এলাকা
রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৪টি জেলার ৩৩টি উপজেলা ও দুটি সিটি করপোরেশন এলাকা।
প্রকল্পের উদ্দেশ্য
শতভাগ রাজস্ব আদায়, সিস্টেম লস এক শতাংশ হ্রাস, রিয়েল টাইম বিলিং পদ্ধতি চালু করা এবং ওভারবিলিং-আন্ডারবিলিং দূরীকরণ। গ্রাহক কর্তৃক অনলাইন বিল অ্যাকসেস ও পেমেন্ট এবং লোড নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা বাস্তবায়ন ও গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার সাশ্রয় করা হবে।
প্রধান কার্যক্রমসমূহ
প্রকল্পের আওতায় ১১ লাখ ১৩ হাজার ৬০৮টি সিঙ্গেল ফেজ ও ৮৬ হাজার ৩৯২টি থ্রি-ফেজ স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপন করা হবে। ১৩ হাজার ৬১৯টি ডাটা কনসেন্ট্রেটর ইউনিট স্থাপন, তিনটি হেড অ্যান্ড সিস্টেম ও ৭০টি হ্যান্ড হেল্ড ইউনিট স্থাপন করা হবে। ১২ লাখ মিটারের জন্য ডাটা ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ও বিলিং সফটওয়্যার তৈরি করা হবে।

পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার সঙ্গে সঙ্গতি
অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থায় সিস্টেম লস হ্রাস করে একটি দক্ষ ও সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন কাঠামো তৈরি করা হবে। এর মাধ্যমে সবার জন্য সাশ্রয়ী, নির্ভরযোগ্য, আধুনিক ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎসেবা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বিবেচ্য প্রকল্পের আওতায় স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপনের মাধ্যমে সিস্টেম লস হ্রাস ও গ্রাহক সেবার মানোন্নয়নের পাশাপাশি যথাসময়ে শতভাগ বিদ্যুৎ বিল আদায় করা সম্ভব হবে।

পরিকল্পনা কমিশনের মতামত
প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নেসকোর আওতাভুক্ত সব গ্রাহককে স্মার্ট প্রি-প্রেমেন্ট মিটার ব্যবহারের আওতায় আনা এবং বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার ডিজিটাইজেশন, সিস্টেম লস হ্রাস, বিদ্যুৎ সাশ্রয় ও গ্রাহকসেবার মানোন্নয়নের পাশাপাশি শতভাগ রাজস্ব আদায় করা সম্ভব হবে। বিদ্যুৎ বিভাগের আওতায় নেসকো কর্তৃক বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাবিত প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

নিউজ বিজয়/নজরুল

Up to BDT 650 benefits on New Connection

সকল সংবাদ পেতে ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে সাথে থাকুন…

নিউজবিজয় ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার দিন

NewsBijoy24

নিউজবিজয়২৪.কম একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল। বস্তুনিষ্ঠ ও তথ্যভিত্তিক সংবাদ প্রকাশের প্রতিশ্রুতি নিয়ে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। উৎসর্গ করলাম আমার বাবার নামে, যাঁর স্নেহ-সান্নিধ্যের পরশ পরিবারের সুখ-দু:খ,হাসি-কান্না,ব্যথা-বেদনার মাঝেও আপার শান্তিতে পরিবার তথা সমাজে মাথা উচুঁ করে নিজের অস্তিত্বকে মেলে ধরতে পেরেছি।

Nagad-Fifa-WorldCup

বিএনপির নতুন কর্মসূচি ঘোষণা

স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার পাচ্ছেন রংপুর-রাজশাহীর সব গ্রাহক

প্রকাশিত সময়: ০৯:০২:০২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ জুন ২০২২

স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটারের আওতায় আসছে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের সব গ্রাহক। এজন্য রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে নর্দান ইলেকট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানি লিমিটেডের (নেসকো) আওতাধীন এলাকায় স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপন প্রকল্প অনুমোদন করা হয়েছে। ৭১২ কোটি ৬২ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে নেসকো। আজ এই প্রকল্পসহ একনেক সভায় দুই হাজার ৬৬৫ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয়ে ৯ প্রকল্পের চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। দুই বছরেরও বেশি সময় পর সশরীরের একনেক বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (১ জুন) আগারগাঁওয়ের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। ২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনা শনাক্তের পর থেকে আর সশরীরে একনেক বৈঠকে উপস্থিত হননি প্রধানমন্ত্রী।
একনেক সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, একনেক সভায় দুই হাজার ৬৬৫ কোটি ২১ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত ৯টি প্রকল্প অনুমোদন করেছে। প্রকল্পটি জুলাই ২০২১ থেকে জুন ২০২৪ মেয়াদে বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রকল্প এলাকা
রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৪টি জেলার ৩৩টি উপজেলা ও দুটি সিটি করপোরেশন এলাকা।
প্রকল্পের উদ্দেশ্য
শতভাগ রাজস্ব আদায়, সিস্টেম লস এক শতাংশ হ্রাস, রিয়েল টাইম বিলিং পদ্ধতি চালু করা এবং ওভারবিলিং-আন্ডারবিলিং দূরীকরণ। গ্রাহক কর্তৃক অনলাইন বিল অ্যাকসেস ও পেমেন্ট এবং লোড নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাপনা বাস্তবায়ন ও গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার সাশ্রয় করা হবে।
প্রধান কার্যক্রমসমূহ
প্রকল্পের আওতায় ১১ লাখ ১৩ হাজার ৬০৮টি সিঙ্গেল ফেজ ও ৮৬ হাজার ৩৯২টি থ্রি-ফেজ স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপন করা হবে। ১৩ হাজার ৬১৯টি ডাটা কনসেন্ট্রেটর ইউনিট স্থাপন, তিনটি হেড অ্যান্ড সিস্টেম ও ৭০টি হ্যান্ড হেল্ড ইউনিট স্থাপন করা হবে। ১২ লাখ মিটারের জন্য ডাটা ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম ও বিলিং সফটওয়্যার তৈরি করা হবে।

পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার সঙ্গে সঙ্গতি
অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় বিদ্যুৎ সঞ্চালন ও বিতরণ ব্যবস্থায় সিস্টেম লস হ্রাস করে একটি দক্ষ ও সাশ্রয়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন কাঠামো তৈরি করা হবে। এর মাধ্যমে সবার জন্য সাশ্রয়ী, নির্ভরযোগ্য, আধুনিক ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎসেবা নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। বিবেচ্য প্রকল্পের আওতায় স্মার্ট প্রি-পেমেন্ট মিটার স্থাপনের মাধ্যমে সিস্টেম লস হ্রাস ও গ্রাহক সেবার মানোন্নয়নের পাশাপাশি যথাসময়ে শতভাগ বিদ্যুৎ বিল আদায় করা সম্ভব হবে।

পরিকল্পনা কমিশনের মতামত
প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নেসকোর আওতাভুক্ত সব গ্রাহককে স্মার্ট প্রি-প্রেমেন্ট মিটার ব্যবহারের আওতায় আনা এবং বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার ডিজিটাইজেশন, সিস্টেম লস হ্রাস, বিদ্যুৎ সাশ্রয় ও গ্রাহকসেবার মানোন্নয়নের পাশাপাশি শতভাগ রাজস্ব আদায় করা সম্ভব হবে। বিদ্যুৎ বিভাগের আওতায় নেসকো কর্তৃক বাস্তবায়নের জন্য প্রস্তাবিত প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

নিউজ বিজয়/নজরুল